চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের’ নেতৃত্ব দিতে সক্ষমতা অর্জনে অনলাইন এন্টারপ্রিনিয়ার্স

‘চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের’ নেতৃত্ব দেয়ার মতো সক্ষমতার জন্য তথ্য প্রযুক্তিতে দক্ষতা অর্জনে আমাদের কাজ করে যেতে হবে। আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, ব্লক চেইন, আইওটি, ন্যানো টেকনোলজি, বায়োটেকনোলজি, রোবটিকস, মাইক্রোপ্রসেসর ডিজাইনের মতো ক্ষেত্রগুলোতে আমাদের জোর দিতে হবে। স্টার্ট আপের মত নতুন উদ্ভাবনের পথে একযোগে কাজ করতে হবে, তাহলেই আমরা এগিয়ে যাব।’
বাংলাদেশ অনলাইন এন্টারপ্রিনিয়ার্স এসোসিয়েশন আয়োজিত এক সেমিনার ও ওয়ার্ক শপে এ অভিমত ব্যক্ত করেন বক্তারা। আজ ৬ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রামের আগ্রাবাদে বেস্ট ওয়েস্টার্ন এলায়েন্সের কনফারেন্স হলে অনুষ্ঠিত এই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন চট্টগ্রাম সিটি মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী। সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি মোস্তারী মোরশেদ স্মৃতির সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন সাউথ আফ্রিকার অনারারি কনসাল সোলায়মান আলম শেঠ।
সিটি মেয়র মো. রেজাউল করিম চৌধুরী বলেন, বাংলাদেশ অনলাইন এন্টারপ্রিনিয়ার্স এসোসিয়েশন তরুণ উদ্যোক্তা সৃষ্টি করে ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে ভূমিকা রাখছে। চট্টগ্রামের আধুনিক প্রযুক্তি অবকাঠামো উন্নয়নে ও দক্ষ মানবসম্পদ গঠনে এই সংগঠন কাজ করে যাবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
অনুষ্ঠানের তরুণ উদ্যোক্তাদের টেকসই ই বিজনেস প্রশিক্ষণ নিয়ে জয়বাংলা এওয়ার্ড অর্জনকারী আরাফাতুল ইসলাম আকিব এর সঞ্চালনায় ডিসকাশন মিটিং ও প্রশ্নোত্তর পর্বে আরো বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব ও এপি এর ব্যুরো প্রধান জুলহাস আলম, বিশিষ্ট কর্পোরেট ব্যক্তিত্ব তানভীর শাহরিয়ার রিমন, বিশিষ্ট নারী উদ্যোক্তা নিলুফার নীশা। অনুষ্ঠানের মিডিয়া সমন্বয়ে ছিলেন সরোয়ার আমিন বাবু। ইভেন্ট সমন্বয়ে ছিলেন নিজাম উদ্দিন গোফরান ও অনিক বড়ুয়া।
বক্তারা আরো বলেন, ডিজিটাল প্রযুক্তির নিত্যনতুন উদ্ভাবনের মাধ্যমে আসছে চতুর্থ শিল্পবিপ্লব। এখানে আছে বহু প্রযুক্তির এক ফিউশনে ভৌতজগৎ ও ডিজিটাল-জগৎ এবং জীবজগৎ পরস্পরের মধ্যে লীন হয়ে যাচ্ছে। দেশে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে বিনিয়োগ বাড়ানোর জন্য ইতোমধ্যে বিশ্বমানের ৩৯টি হাইটেক পার্ক নির্মাণ করা হয়েছে। এসব পার্কে যথেষ্ট কর্মসংস্থানের পাশাপাশি ডিজিটাল অবকাঠামো উন্নয়ন হবে। স্টার্টআপদের জন্য বিশাল সুযোগ রয়েছে এই সেক্টরে।

 spankbang