কুটুমবাড়ী রেঁস্তোরা কে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা

কুটুমবাড়ী রেঁস্তোরা কেউই স্বাস্থ্যবিধি মানছে না। কারো কাছেই মুখে মাস্ক ও হাতে হ্যান্ড গ্লাভস পাওয়া যায়নি। ফ্রিজে মাছ ও মাংসের সাথে অপরিচ্ছন্ন উপায়ে রাখা হয়েছে আটার খামি ও অন্যান্য মশলা জাতীয় দ্রব্য। এছাড়াও নিজস্ব উৎপাদিত ফিরনিতে নেই উৎপাদনের তারিখ ও মেয়াদ উত্তীর্ণের তারিখ।

এ চিত্র নগরীর ওয়াসা মোড়ের কুটুমবাড়ী রেঁস্তোরার। বৃহস্পতিবার (৯ জুলাই) জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ভ্রাম্যমাণ আদালত অভিযান পরিচালনা করলে এ চিত্রটি দেখতে পান। পরে প্রতিষ্ঠানটিকে এসব অপরাধের জন্য ৪০ হাজার জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আলী হাসান। উল্লেখ্য যে বেশ কয়েকবার একেখান কুটুম্ববাড়ী রেস্তোঁরা কে জরিমানা করা হয়েছিল

এদিকে একই এলাকায় অবস্থিত স্বনামধন্য কুপার্স ও ডুলছে নামের দুটি বেকারিতেও অভিযান চালায় জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত। অভিযানে দেখা যায়-প্রতিষ্ঠান দুটি বাংলাদেশ স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্ড টেস্টিং ইন্সটিটিউটের (BSTI) লাইসেন্স ছাড়া মিল্ক ব্রেড উৎপাদন ও বাজারজাতকরণ করছে।

এছাড়াও বিএসটিআই’র লোগো ৩৮৩ যা বিস্কুটের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য সেটা কেকে লাগিয়ে বিক্রি করছে। এসব অপরাধের জন্য প্রতিষ্ঠান দুটিকেও ২৫ হাজার টাকা করে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আলী হাসান।

অভিযানের সত্যতা নিশ্চিত করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট আলী হাসান বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মানছিল না ওয়াসা মোড়ের কুটুমবাড়ী রেঁস্তোরা। যার কারণে প্রতিষ্ঠানটিকে ৪০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এছাড়া কুপার্স ও ডুলছে নামের দুটি প্রতিষ্ঠানকে ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। প্রতিষ্ঠান দুটি বিএসটিআইয়ের লাইসেন্স ছাড়া মিল্ক ব্রেড উৎপাদন ও বাজারজাত করছিল।

 spankbang