উত্তর পাহাড়তলী এলাকায় গণসংযোগকালে মেয়র প্রার্থী রেজাউল করিম চৌধুরী

নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে সকলের মতামত নিয়ে কাজ করব নির্বাচনী প্রচারনার ৪র্থ দিনে নগরীর ৯ নং উত্তর পাহাড়তলী, ১০ নং উত্তর কাট্টলী ও ১২ নং সরাইপাড়া ওয়ার্ডে ব্যাপক গনসংযোগ করেছেন আওয়ামীলীগ মনোনীত চট্টগ্রাম সিটি মেয়র পদপ্রার্থী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. রেজাউল করিম চৌধুরী। নৌকায় ভোট চেয়ে গনসংযোগকালে তিনি বিভিন্ন জনাকীর্ণ স্থানে পথসভায় বক্তব্য রাখেন। এ সময় তিনি বলেন, চট্টগ্রামের ঐতিহ্যবাহী জমিদার বংশীয় পরিবার বহরদার পরিবারের সুযোগ্য সন্তান আমি। হিসেবে ধন-দৌলতের আর ঐশ্বর্য্যের মাঝে সোনার চামচ মুখে নিয়ে জন্ম আমার । ১৯৬৬ সালে চট্টগ্রামের লালদীঘি মাঠে যখন বাংলাদেশের স্বাধীনতার ভিত্তি ঐতিহাসিক ৬ দফা ঘোষনা করা হয়, তখন আমি ১৩ বছরের একজন স্কুল পড়ুয়া কিশোর আমি। আমার স্কুলের মাঠ হিসেবে সেদিনের জনসভায় আমি বঙ্গবন্ধুকে প্রথম দেখার সৌভাগ্য হয়েছে। তাঁর ভাষন আমাকে দারুনভাবে আলোড়িত করেছিল সেদিন । তার আদর্শের প্রতি অনুরক্ত হয়ে ৬৭ সাল থেকে ছাত্র রাজনীতির সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে পড়ি। চাইলে আমি পায়ের উপর পা তুলে, শুয়ে-বসে দিনাতিপাত করতে পারতাম। বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে আমি দেশের কল্যান ও দেশের মানুষের অধিকার আদায়ের কঠোর সংগ্রামের পথকেই বেঁচে নিয়েছি । ১৯৭১ সালে প্রত্যক্ষভাবে অস্ত্র হাতে জীবনবাজি রেখে আমি মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন করেছি । দেশ স্বাধীন হবার পরও থেমে থাকিনি দেশ গড়ার কাজে। শিক্ষা, শান্তি, প্রগতির ধারায় ছাত্র সমাজকে ঐক্যবদ্ধ রাখতে ছাত্রলীগের রাজনীতি করে গিয়েছি । ১৯৭৫ সালে দেশী বিদেশী ষড়যন্ত্রে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হলে প্রতিবাদ ও হত্যাকারীদের প্রতিরোধ সংগ্রামে অংশ নিয়েছি। প্রকাশ করেছি নানান পত্রিকা, ম্যাগাজিন, প্রবন্ধ, ইতিহাস নির্ভর ড়্রন্থনা। তার পর অনেক ইতিহাস। অনেক ভয়ভীতি, হুঙ্কার, প্রলোভন আমাকে দেখানো হয়েছে। কোন কিছুই মুজিবাদর্শের পথচলা থেকে বিচ্যুত করতে পারেনি তাঁকে। কারন, আমি বঙ্গবন্ধুর কর্মী। আমার অন্য কোন লক্ষ্য থাকতে পারেনা। জনগনের স্বার্থই আমার স্বার্থ। মানুষের কল্যান ও উন্নয়নই আমার লক্ষ্য। আমার নেত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে বৃহত্তর পরিসরে আপনাদের সেবা করার জন্য চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে মনোনয়ন দিয়েছেন। আমার নেত্রী বঙ্গবন্ধুর কণ্যা জনস্বার্থের জন্য দিনরাত পরিশ্রম করেছেন। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতি পর্যবেক্ষনের জন্য তিনি দেশের মানুষের স্বাস্থ্য নিরাপত্তা বিবেচনায় মুজিববর্ষের কর্মসূচী সংক্ষিপ্ত করেছেন। দেশের উন্নয়নে শেখ হাসিনা এখন বিশ্বের বিষ্ময়। চট্টগ্রাাম ও দেশের উন্নয়ন অগ্রগতির স্বার্থে আমি মেয়র পদে নৌকায় ভোট চাই। ভোটের মালিক জনগন। আপনাদের ভোটে নির্বাচিত হলে আমি সর্বোচ্চ নাগরিক সেবা নিশ্চিত করতে সকলের মতামত নিয়ে কাজ করব। জননেত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নের সুযোগ কাজে লাগিয়ে চট্টগ্রামকে আরো সমৃদ্ধতর মহানগর হিসেবে গড়ে তুলব। এ জন্য আমি আপনাদের ভোট ও দোয়া চাইছি। গণসংযোগকালে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মহানগর আওয়ামীলীগের উপদেষ্টা মো. শফর আলী, খোরশেদ আলম সুজন, শেখ মাহমুদ ইসহাক, মহানগর আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, মহানগর আওয়ামীলীগ নেতা মো. ঈছা, জামশেদুল আলম চৌধুরী, দক্ষিন জেলা আওয়ামীলীগ নেতা শওকত ওসমান জাহাঙ্গীর, ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের আহ্বায়ক নেছার আহমেদ মঞ্জু, যুগ্ম আহ্বায়ক মো. ইকবাল, গিয়াস উদ্দিন জুয়েল, হাবিবুর রহমান প্রমূখ। এছাড়াও স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা এ সময় উপস্থিত ছিলেন।

 spankbang