উপজাতিরা সমুদ্রসৈকতে বিজু উৎসবে মেতেছে

ভোর সকাল হতেই চাকমাদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে পতেঙ্গা সমুদ্রসৈকত। হাতে ফুল নিয়ে তারা হাঁটু পানিতে নেমে মেতে ওঠে বিজু উৎসবে।

শুক্রবার (১২ এপ্রিল) ভোর ৫টা থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত ফুল ভাসানো হয়। চট্টগ্রামে বসবাসরত অনেক চাকমা পরিবার-পরিজন নিয়ে আসেন সৈকত এলাকায়। এ সময় এক মিলনমেলায় পরিণত হয় পতেঙ্গা সমুদ্রসৈকত।

পতেঙ্গা সমুদ্রসৈকতে তৃতীয়বারের মত পালন করা হলো এ উৎসবের । নগরের বিভিন্ন এলাকা থেকে চাকমারা র‌্যালি নিয়ে যান সৈকত এলাকায়। তাদের পরনে বর্ণিল পোশাক আর হাতে ছিল ফুলের গুচ্ছ। পানিতে ফুল ভাসিয়ে দিয়ে বিশ্বশান্তি কামনা ও নতুন বছরে সবার জন্য মঙ্গল কামনা করেন তারা।

আগ্রাবাদ রংগীপাড়া থেকে আসা টিপু চাকমা বলেন, বিজু উৎসব আমাদের একটি আনন্দের দিন। সবাই মিলে আমরা ফুল ভাসানো অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করি এবং সকলে মিলিত হই উৎসবে।

চাকমা ও তঞ্চঙ্গ্যাদের বর্ষবরণ অনুষ্ঠানের নাম বিজু উৎসব। চৈত্রমাসের শেষ দুইদিন এবং পহেলা বৈশাখ নিয়ে মোট তিনদিন ধরে চলে এ উৎসব। বিজু উৎসবে তিনদিনের আলাদা নাম রয়েছে। প্রথমদিন ফুল বিজু, দ্বিতীয়দিন মূল বিজু ও তৃতীয়দিন গোজ্যাপোজ্যা।

ফুল ভাসাতে আসা নিলা চাকমা বলেন, দিনটি আমাদের কাছে গুরুর্ত্বপূর্ণ। পুরাতন বছরের সকল দুঃখকে বিদায় জানিয়ে নতুন বছরকে বরণ করতে আজ সবাই একত্রিত হয়েছি। খুবই ভালো লাগছে পরিবারের সবাই আত্মীয়-স্বজনদের সঙ্গে মিলিত হয়ে।

 spankbang