শিখে নেব ভালবাসার প্রথম পাঠ – অনিন্দ্য টিটো

আমি তোমার নথ হব, শিল্পিত অই আদুরে নাকের নথ!
তোমার সাথেই হবে তখন শোয়া-বসা, ঘেঁষাঘেঁষি,লজ্জ্বাভাঙা ঘুম
হাতটি ধরে কথামালায় পা মেলানোর পথটি হবে চলা।
ছুঁয়ে নেব না-ফুরানো চির যৌবনা প্রেমের হাসি-গানে
ভোরবেলাকার খিড়কি-দুয়ার খুলে উঁকি দিয়ে ওঠা সূর্যটি;
জলকেলিতে পিছল খাব মাতাল ঘ্রাণে স্নানের ঘরেতে সঙ্গোপনে
শরীরের সমস্ত উষ্ণতা ঢেলে দেয়া-নেয়ার আদিম গোঙানির
ঝাপসা চোখাচোখিতে শিখে নেব দু’জন ভালবাসার প্রথম পাঠ!
থাকব মেতে ঠোঁটে, বুকে, বাহুতে, শিহরণে অষ্টাদশী প্রেমে।

নথ হয়ে থাকব ছুঁয়ে বিন্দু বিন্দু জমে থাকা আদুরে নাকের ঘাম
দুলব হাওয়ার দোলনায় নিঃশ্বাসের পরতে পরতে।
আয়নাতে যখন দেখবে নিজেকে! দেখবে আমিও আছি
সিঁদুরে আভার ডগাটি ছুঁয়ে সুখ-আবেশে করছি চুমোচুমি।
কুর্ণিশ ভঙ্গিতে পায়ে আলতা পরার ক্ষণটিতে যখন বুকে
জাগবে আঁধারে পিদিম জ্বালানো উৎফুল্লতার উর্মিমালা;
হাঁটুতে ভার রাখা চিবুকের উপর থেকে তখন চুপি চুপি
দেখে নেব তোমার বুক-সমস্তের সৌন্দর্যের দো-চালা।

তোমার ডাগর চোখের কাজল হয়ে একেঁ দেব প্রাণেশ্বরী
প্রেমের প্রথম বন্ধনী, প্রণয়ের সুর ভরে দেব বসন্ত-বাঁশীতে।
লিপস্টিকের রঙে এনে দেবে মুঠো মুঠো আনন্দের সোনারোদ;
অস্তপারের সন্ধ্যাতারাদের পৌঁছে দেব হাওয়ায় চিৎকার করে
তোমার আমার অতিপুরাতন চিরনিদ্রার অফুরন্ত প্রহর।
বুকবন্ধনী হয়ে চুষে নেব তোমার পাওয়ার বুকের
না-পাওয়ার তৃষ্ণা জাগানিয়া দুঃখ-বিরহের গন্তব্য;
এনে দেব, বালুকা বেলায় মিশে যাওয়া ঊর্মীদের ভালবাসা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*